Sunday, 5/7/2020 | : : UTC+6
Green News BD

ধারণার চেয়ে বেশি কার্বন ডাই-অক্সাইড বিশ্বে

ধারণার চেয়ে বেশি কার্বন ডাই-অক্সাইড বিশ্বে
বর্তমানে বায়ুমণ্ডলে বছরে কার্বন ছড়ায় প্রায় ৪ হাজার কোটি টন। এসিতে হাইড্রোফ্লুওরোকার্বন নামের একধরনের যে রেফ্রিজারেন্ট ব্যবহার করা হয়, সেটা বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই-অক্সাইডের চেয়ে এক হাজার গুণের চেয়ে বেশি ক্ষতি করে। ১৮৬০ সালে শিল্পবিপ্লবের সময় থেকে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করে। তখন ভূপৃষ্ঠের গড় তাপমাত্রা ছিল প্রায় ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এখন গড় তাপমাত্রা বেড়েছে ১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আইপিসিসি (ইন্টারগভর্নমেন্টাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জ) গত ৮ অক্টোবর ২০১৮ এই তথ্য জানিয়েছে।

অরণ্যচ্ছেদন প্রভৃতি কারণে পৃথিবীর বায়ুমন্ডলের তাপমাত্রা ক্রমাগত বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে । বিগত ৮০০০ বছর ধরে এই তাপমাত্রা প্রায় স্থির ছিল । কিন্তু গত ১০০ বছরের হিসেবে প্রমাণিত যে এই তাপমাত্রা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে ।  সারা পৃথিবী জুড়ে উষ্ণতার এই ক্রমবর্দ্ধমান বৃদ্ধিকেই বিজ্ঞানীরা বিশ্ব উষ্ণায়ন বা গ্লোবাল ওয়ার্মিং (Global Warming) নামে অভিহিত করেছেন ।

পরিবেশবিদেরা অন্য অনেক কিছুর পাশাপাশি এসিকে বিশ্ব উষ্ণায়নের একটি বড় কারণ বলে চিহ্নিত করেন। তাঁরা এসির ঘোর বিরোধী। কিন্তু কঠিন সত্যটা হলো ১৯০২ সালে এসি আবিষ্কারের পর থেকে প্রায় ১০০ বছরে বিশ্বে যত এসি বসানো হয়েছে, তার সমান সংখ্যার এসি আগামী ১০ বছরে যোগ হবে।শীতাতপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্র বা এসি ছাড়া জীবন অচল। এটা লাগবেই। বরং দিন দিন আরও বেশি দরকার হবে। আমাদের মতো গরমের দেশে তো বটেই, এখন শীতের দেশেও গরম বাড়ছে। আর সেই সঙ্গে বাড়ছে এসির প্রয়োজন। এসি কাজের কক্ষে গরম কমায়, উৎপাদনশীলতা বাড়ায়। কিন্তু সমস্যা অন্যখানে। এসি চালাতে বিদ্যুৎ লাগে। আর বিদ্যুৎ উৎপাদনে লাগে জ্বালানি। এটা পুড়ে বাতাসে কার্বন ডাই-অক্সাইড ছড়ায়। এসির ভেতরে ব্যবহৃত কুলিং এজেন্টও (শীতলীকরণ তরল) বাতাসে কার্বন ছড়ায়। ফলে বিশ্ব উষ্ণায়ন বাড়ে। ক্লোরোফ্লোরোকার্বন (CFC11, CFC12) বা ফ্রেয়ন একটি বিশেষ যৌগ, যা ওজোন স্তর বিনাশনের জন্য বিশেষভাবে দায়ী । এই CFC প্রধানত রেফ্রিজারেটর, এয়ার কন্ডিশনার, ফোম শিল্প, রং শিল্প, প্লাস্টিক শিল্প, সুগন্ধি শিল্প, কম্পিউটার ও অন্যান্য যন্ত্রের সার্কিট পরিষ্কার প্রভৃতি ক্ষেত্র থেকে নির্গত হয় ।

এক হিসাবে জানা গেছে, এসির আবহাওয়া দূষণকারী রেফ্রিজারেন্ট বদলিয়ে দূষণমুক্ত রেফ্রিজারেন্টের নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে ২০৫০ সালের মধ্যে বাতাসে মোট ৯ হাজার কোটি টন কার্বন ডাই-অক্সাইড কমানো যাবে। আর যন্ত্রের দক্ষতা বাড়িয়ে আরও ৯ হাজার কোটি টন কমানো যাবে। সেখানে অন্য ধরনের দূষণের সঙ্গে তুলনা করে দেখানো হয়েছে এসির দূষণ কত ভয়াবহ।

এছাড়া  বিশ্বের অর্ধেক মানুষ যদি মাংস খাওয়া বাদ দেয় তাহলে ৬ হাজার ৬০০ কোটি টন কার্বন বায়ুমণ্ডলে কম ছড়াবে। গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলের উজাড় করা বনভূমির দুই-তৃতীয়াংশ পুনরুদ্ধার করতে পারলে ৬ হাজার ১০০ কোটি টন কার্বন নিঃসরণ কমবে। বিশ্বব্যাপী সাইকেলে চলাচল এক-তৃতীয়াংশ বাড়াতে পারলে ২৩০ কোটি টন কার্বন কমবে। আর সে তুলনায় শুধু এসিতেই কমানো যেতে পারে ১৮ হাজার কোটি টন কার্বন নিঃসরণ!

তার মানে এই না যে এসির ব্যবহার বন্ধ করতে হবে। তাহলে তো উন্নয়নের ক্ষতি। নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বাড়ানো থেকে শুরু করে বনায়ন—এগুলোই আসল লক্ষ্য। কিন্তু সেই সঙ্গে শুধু এসির কাজের দক্ষতা বাড়ানো, নষ্ট এসিগুলো বাদ দেওয়া, পরিবেশসম্মত কুলিং রেফ্রিজারেন্ট ব্যবহার করা এবং বাসা-অফিসের ডিজাইন এমনভাবে করা যেন কম বিদ্যুৎ-বাতি ব্যবহার করতে হয়, প্রচুর আলো-বাতাস খেলে, যেন এসির ব্যবহার খুব কম লাগে। তাহলে অনেক কার্বন নিঃসরণ কমানো সম্ভব।

আজকের বিশ্বে, সব দেশে, সব মানুষের এক নম্বর দায়িত্ব হলো বায়ুমণ্ডলে কার্বন নিঃসরণ কমানো। এর চেয়ে বড় কাজ আর নেই।

সূত্রঃ আব্দুল কাইয়ুম

প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক

Sharing is caring!

Advisory Editor
Kazi Sanowar Ahmed Lavlu
Editor
Nurul Afsar Mazumder Swapan
Sub-Editor
Barnadet Adhikary 
Dhaka office
38 / D / 3, 1st Floor, dillu Road, Magbazar.
Chittagong Office
Flat: 4 D , 5th Floor, Tower Karnafuly, kazir deori.
Phone: 01713311758

পুরানো খবর

জুলাই 2020
শনি রবি সোম বুধ বৃহ. শু.
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

ছবি ঘর

    WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com