উল্টো পথে যানবাহন চালানোর জরিমানা-আজ থেকেই যদি এই অন্যায় বন্ধ হয়

রাজধানীতে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন সুগন্ধার সামনে আজ বিকেল চারটার দিকে হঠাৎ করেই দাঁড়ালেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। তাঁর উদ্যোগে পুলিশ সেখানে উল্টো পথে চলা গাড়ি ও মোটরসাইকেল আটকানো শুরু করল। দুই ঘণ্টা ধরে চলা এ অভিযানে মামলা ও জরিমানা করা হয়েছে ৫০টি যানবাহনকে। এর মধ্যে ৪০টিই সরকারি গাড়ি। অভিযান চলাকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মো. মোসলেহউদ্দিনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, অভিযানে যেসব গাড়ির জরিমানা ও মামলা করা হয়েছে তার মধ্যে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদের গাড়ি থেকে শুরু করে সচিব, বিচারক, সরকারি দলের নেতা, পুলিশ ও সাংবাদিকদের গাড়িও রয়েছে।

এইভাবেই একবার এক বিচারকের গাড়ি উল্টোপথে চলার সময় প্রানবন্ত এক ছেলেকে মটরসাইকেলসহ এক্সিডেন্ট করে। গত ২ জুলাই ২০১৭ ইন্টারকন্টিনেন্টাল (সাবেক রূপসী বাংলা ও সাবেক শেরাটন) মোড়ে উল্টোপথ দিয়ে আসা এক বিচারপতির গাড়ির নিচে চাপা পড়ে গুরুতর আহত হন মোটরসাইকেল আরোহী জুবিন ফয়সল। এখনো সেই ছেলে জুবিন বিছানায় পঙ্গুত্বের সাথে লড়ছে। শুধু কি জুবিন তার সাথে সাথে তার পরিবারের সবাই জীবনের হাসি আনন্দ ভুলে গেছে। সেই বিচারপতি তার কৃতকর্মের জন্য অনুশোচনা দূরে থাক, একবারও দেখতে পর্যন্ত আসেনি।

এই এক্সিডেন্টের জন্য তার পরিবারের যে আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা প্রায় ১০/১৫ লাখ। এটাতো জুবিনের দোষে হয়নি? তাহলে এই এক্সিডেন্টের ব্যয়ভার কেন বিচারপতি বহন করতে বাধ্য নয়??

Sharing is caring!

Related Articles

Back to top button