Wednesday, 29/1/2020 | : : UTC+6
Green News BD

নবগঙ্গার স্রোতে বাধা যুব ভবনের প্রাচীর

নবগঙ্গার স্রোতে বাধা যুব ভবনের প্রাচীর

চুয়াডাঙ্গার নবগঙ্গা নদীর খননকাজ যুব ভবনের সীমানাপ্রাচীরে এসে আটকে আছে। নদীর খননকাজ চালিয়ে যেতে হলে ভেঙে ফেলতে হবে যুব ভবনের প্রাচীর ও যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের বেশ কিছু স্থাপনা। এ পরিস্থিতিতে যুব ভবন এলাকায় খননকাজ বন্ধ রেখেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। এখন চলছে যুব ভবনের অপর প্রান্তের খননকাজ।

চুয়াডাঙ্গা-ঝিনাইদহ সড়কের বাস টার্মিনালের কিছু দূরে প্রধান সড়কের পাশে তৈরি করা হয়েছে যুব ভবন। যুব ভবন এলাকায় জমির পরিমাণ দুই একর। ২০১২ সালে যুব ভবন নির্মাণের জন্য এই জমি অধিগ্রহণ করা হয়। জমি অধিগ্রহণে খরচ হয় দেড় কোটি টাকা। এরপর সাড়ে ১৬ কোটি টাকা খরচ করে তৈরি করা হয় ভবন। ২০১৩ সালের ২৭ আগস্ট তৎকালীন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আহাদ আলী সরকার যুব ভবন নির্মাণের জন্য ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। পরে ২০১৮ সালের ২১ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভবনটির উদ্বোধন করেন।

চুয়াডাঙ্গা পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, শহরের ইসলামপাড়া এলাকায় মাথাভাঙ্গা নদী থেকে নবগঙ্গা নদীর গতিপথ শুরু। নদীটি চুয়াডাঙ্গা জেলা অতিক্রম করে ঝিনাইদহ জেলায় গিয়ে পড়েছে। উৎসমুখ থেকে চুয়াডাঙ্গা জেলার অংশে খনন করা হবে নবগঙ্গা। এরই মধ্যে জেলার সীমানার মধ্যে ছয় কিলোমিটার এলাকা খনন করা হয়েছে। এর মধ্যেই পড়েছে যুব ভবন। নদীর বুকে যুব ভবনের সীমানাপ্রাচীর ও কক্ষ থাকায় সেই স্থানে কাজ বন্ধ রেখে অন্য এলাকায় এখন চলছে খননকাজ।

চুয়াডাঙ্গা পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী সালাহ উদ্দীন জানান, সাত কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয় হবে নবগঙ্গার খননকাজে। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বালিয়াকান্দি সেতু পর্যন্ত খনন করা হবে। এরই মধ্যে মাথাভাঙ্গা নদীর উৎসমুখ থেকে ছয় কিলোমিটার পর্যন্ত খননকাজ সম্পন্ন হয়েছে। মাঝে যুব ভবনের স্থানটুকুতে কাজ বন্ধ আছে।

যুব ভবনের পাশের এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে বসবাসকারী অনেকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ভরাট হতে হতে নবগঙ্গা শেষ পর্যন্ত যে অবস্থায় পৌঁছেছে, তাতে বেশির ভাগ মানুষের পক্ষেই বুঝে ওঠা সম্ভব নয় কোথায় নবগঙ্গার সঠিক সীমানা। পুরোপুরি ভরাট হয়ে যাওয়া নবগঙ্গার বুকজুড়ে দীর্ঘদিন হয়েছে চাষাবাদ। এসব কারণেই হারিয়ে যাওয়া নবগঙ্গাকে খনন করতে গিয়ে দেখা দেয় নানা জটিলতা। পানি উন্নয়ন বোর্ড নবগঙ্গার যে সীমানা নির্ধারণ করেছে, তাতেও আপত্তি করে অনেকে। অনেকে তার নিজের মালিকানাধীন জমি নবগঙ্গায় চলে যাচ্ছে দাবি করে মামলাও করেছে।

যুব ভবন এলাকায় নবগঙ্গার খননকাজ বন্ধ থাকা প্রসঙ্গে চুয়াডাঙ্গা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী জাহেদুল ইসলাম বলেন, ‘খনন করতে গিয়ে দেখা গেছে, যুব ভবনের প্রাচীর ও কক্ষ রয়েছে নদীর মূল প্রবাহের মাঝামাঝি। ওই স্থানে খনন অব্যাহত রাখতে হলে যুব ভবনের প্রাচীর ও কক্ষ ভাঙতে হবে। এ বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে যে ধরনের সিদ্ধান্ত নেবে, সেভাবে খননকাজ বাস্তবায়ন করা হবে।’

যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর চুয়াডাঙ্গার উপপরিচালক মাসুম আহামেদ বলেন, ‘তৎকালীন জেলা প্রশাসক ভোলানাথ দে ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মল্লিক সাঈদ মাহবুব প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করেই জমি অধিগ্রহণ করেন এবং জমির মালিকদের টাকা পরিশোধ করেন।’ তিনি বলেন, ‘খননকাজ চলা অবস্থায় যুব ভবনের প্রাচীরের কাছে খননকাজ আসার পর স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ আমাদের কাছে চিঠি দিয়ে জানায়, নদীর বুকে যুব ভবনের স্থাপনা পড়েছে। ওই চিঠি পেয়ে বিষয়টি আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ সরেজমিনে এসে তা দেখে গেছে। এখন আর স্থানীয়ভাবে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হবে না। সিদ্ধান্ত নেবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ।’

Sharing is caring!

Advisory Editor
Kazi Sanowar Ahmed Lavlu
Editor
Nurul Afsar Mazumder Swapan
Sub-Editor
Barnadet Adhikary 
Dhaka office
38 / D / 3, 1st Floor, dillu Road, Magbazar.
Chittagong Office
Flat: 4 D , 5th Floor, Tower Karnafuly, kazir deori.
Phone: 01713311758

পুরানো খবর

জানুয়ারী 2020
শনি রবি সোম বুধ বৃহ. শু.
« ডিসে.    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

ছবি ঘর