Tuesday, 18/6/2019 | : : UTC+6
Green News BD

খাগড়াছড়িতে মুখ থুবড়ে পড়েছে খাল খনন প্রকল্প

খাগড়াছড়িতে মুখ থুবড়ে পড়েছে খাল খনন প্রকল্প

খাগড়াছড়িতে মুখ থুবড়ে পড়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের খাল খনন প্রকল্প। কৃষি জমিতে খাল খননে স্থানীয়দের বাধা, প্রকল্পের দরপত্র আহ্বানে বিলম্ব এবং বোর্ড কর্মকর্তাদের গাফিলতির কারণে প্রকল্পটির বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি। এতে মুখ থুবড়ে পড়েছে সরকারের নেয়া প্রায় ৪ কোটি টাকার প্রকল্প। প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে কর্মকর্তাদের দায়সারা ভাব। প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে অনেকটায় নিষ্ক্রিয় খাগড়াছড়ি পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্তারা। চলতি বছরের ৩০ জুন প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও অর্ধেক কাজও শেষ হয়নি। প্রকল্পের আওতায় প্রায় ৭ টি খালের মধ্যে মাত্র ৩ টির ৪৭ -৪৯ শতাংশ ভৌতিক অগ্রগতি হয়েছে। বাকী ৪টি খাল খননের অগ্রগতি প্রায় শূন্য।

জানা যায়, দেশের ৬৪ টি জেলার অভ্যন্তরস্থ ছোট নদী, খাল এবং জলাশয় পুন:খনন প্রকল্প (১ম পর্যায়) নেয় সরকার। এই প্রকল্পের আওতায় খাগড়াছড়িতে ২০১৮-১৯ আর্থিক অনুন্নয়ন রাজস্ব খাতের আওতায় সাতটি খননের উদ্যোগ নেয়া হয়। এরমধ্যে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলায় ২ কি.মি দৈর্ঘ্যের বড় গোদা খাল খনন করা হয় মাত্র ৪৮.৯০ শতাংশ। অর্থবছর শেষ হওয়ার মাত্র দুই মাস আগে চলতি বছরের ৪ এপ্রিল কার্যাদেশ দেয় পানি উন্নয়ন বোর্ড। কার্যাদেশ পাওয়ার মাত্র একদিন পরই কাজ শুরু করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মোস্তাফা এন্ড সন্স। একই ভাবে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার ১.৮৩ কিমি দৈর্ঘ্যের নারানখাইয়া খালের ভৌতিক অগ্রগতি মাত্র ১১ শতাংশ, মহালছড়ি উপজেলায় ৮০০ মিটার দৈর্ঘ্যের বদানালা খালের অগ্রগতি ৪৯ শতাংশ। এছাড়া পানছড়ি উপজেলার চেঙ্গী খাল, হাক্কালুক খাল এবং ধুরং খালের খননের কোন অগ্রগতি নেই। বিলম্বে দরপত্র আহ্বান করার কারণে কাজ শুরুতে দেরী হয়েছে। এদিকে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, এখানে আমাদের ফসলি জমিতে বংশ পরম্পরায় চাষাবাদ করছি। খাল খননের কারণে আমাদের ফসলি জমি নষ্ট হচ্ছে।

মূলত: খাল খননের কারণে ফসলি জমিখনন এবং খননকৃত মাটি জমির উপর স্তুপ করার কারণে জমির পরিমাণ কমে আসছে। একারণে স্থানীয়দের বাধার সম্মুখীন হয় ঠিকাদার সংস্থা। খাগড়াছড়ি পানি উন্নয়ন বোর্ডের এসও নিকেল চাকমা জানান, খাল খনন করতে গেলেই স্থানীয়রা বাধা দিচ্ছে। বোর্ডের ম্যাপ অনুযায়ী খালের অস্তিত্ব থাকলেও স্থানীয়দের বাধার কারণে খাল খনন করা যাচ্ছে না।

কার্যাদেশ বিলম্বে প্রদানে বিষয়ে খাগড়াছড়ি পানি উন্নয়ন বোর্ড উপবিভাগীয় প্রকৌশলী নুরুল আজাদ জানান, বরাদ্দ পেতে দেরি হওয়ার কারণে কার্যাদেশ প্রদানে বিলম্ব হয়। এছাড়া স্থানীয়দের বাধার কারণে খাল খনন করা যাচ্ছে না। এসময় তিনি আরো বলেন, ১ম পর্যায়ের কাজটি বাস্তবায়ন না হওয়ার কারণে তা আবারো মেয়াদ বাড়ানো হবে। আগামী অর্থবছরের প্রকল্পটি বর্ধিত করা হবে। তবে জোর করে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা যাবে না।

Sharing is caring!

Advisory Editor
Kazi Sanowar Ahmed Lavlu
Editor
Nurul Afsar Mazumder Swapan
Sub-Editor
Barnadet Adhikary 
Dhaka office
38 / D / 3, 1st Floor, dillu Road, Magbazar.
Chittagong Office
Flat: 4 D , 5th Floor, Tower Karnafuly, kazir deori.
Phone: 01713311758

পুরানো খবর

জুন 2019
শনি রবি সোম বুধ বৃহ. শু.
« মে    
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  

ছবি ঘর